রবিবার, ২৯ মার্চ ২০২০, ০৩:০৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
টাঙ্গাইলে সিমেন্টের ট্রাক উল্টে বস্তার নিচে চাপা পড়ে ৬ যাত্রী নিহত মাস্ক না পরায় বয়স্কদের কান ধরানো যশোরের সেই সহকারী কমিশনার প্রত্যাহার কক্সবাজারে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৪ নতুন করে করোনার সংক্রমণ নেই, আরও চারজন সুস্থ: আইইডিসিআর করোনা চিকিৎসায় হাসপাতাল তৈরির ঘোষণার পর এলাকাবাসীর বিক্ষোভ-ভাঙচুর ছুটি চলাকালে মেয়াদোত্তীর্ণ যানের ফিটনেস নবায়নে জরিমানা মওকুফ ভেন্টিলেশন সুবিধার অভাবে করোনা আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসা সেবা ব্যাহত হওয়ার আশঙ্কা বিশ্বে করোনাভাইরাসে মৃত্যুর শতকরা ৭০ ভাগ ইউরোপে ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ৮৭৩, মৃত ১৯ করোনাভাইরাস: বিশ্বনেতাদের কারা আক্রান্ত, কারা নন
পলিথিন বন্ধে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সুপারিশ

পলিথিন বন্ধে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সুপারিশ

বি নিউজ : পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভায় পলিথিন বন্ধে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের মাধ্যমে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার সুপারিশ করা হয়েছে। মঙ্গলবার কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ হাছান মাহমুদের সভাপতিত্বে সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত সভায় পলিথিনের ব্যবহার বন্ধে এর কাচামাল আমদানিতে নিয়ন্ত্রণ আরোপ করারও সুপারিশ করা হয়। কমিটির সদস্য পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন উপমন্ত্রী আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, নবী নেওয়াজ, মোঃ ইয়াহ্ইয়া চৌধুরী এবং টিপু সুলতান সভায় অংশগ্রহণ করেন। পরিবেশ অধিদপ্তরের এনফোর্সমেন্ট কার্যক্রম, পাহাড় ধসে গৃহীত কার্যক্রম পরিবেশ অধিদপ্তরের আউটসোসিংয়ের মাধ্যমে লোকবল নিয়োগ কার্যক্রম, চলমান বৃক্ষরোপন কার্যক্রমের অগ্রগতি ও পরবর্তী করণীয় বা গৃহীত পদক্ষেপ সম্পর্কে সভায় বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। সভায় জানানো হয় ২০১০ সালের ১৩ জুলাই থেকে গত ৩০ জুন পর্যন্ত সমগ্র বাংলাদেশে এনফোর্সমেন্ট কার্যক্রমের মাধ্যমে অভিযানে আওতাভুক্ত প্রতিষ্ঠান বা স্থাপনা অথবা ব্যক্তির মোট সংখ্যা ৪১৯১টি। এ থেকে ক্ষতিপূরণ ধার্য করা হয়েছিল ২৭০ কোটি ৩ লাখ টাকা এবং ক্ষতিপূরণ আদায় করা হয়েছে ১৬৫ কোটি ৯৭ লাখ টাকা। এছাড়াও জুলাই ২০১৭ থেকে জুন ২০১৮ পর্যন্ত ইটভাটার বিরুদ্ধে পরিচালিত মোবাইল কোর্টের অভিযানের সংখ্যা ১৪৯টি। এ সময় জরিমানা ধার্যকরা হয়েছিল দুই কোটি ১৩ লাখ টাকা এবং জরিমানা আদায় করা হয়েছিল দুই কোটি ১১ লাখ টাকা। সভায় আরো জানানো হয় জুলাই ২০১৭ থেকে জুন ২০১৮ পর্যন্ত পাহাড় কর্তনের বিরুদ্ধে পরিচালিত মোবাইল কোর্টের অভিযানের সংখ্যা ৬৬টি। এ সময় জরিমানা ধার্য করা হয়েছিল ২৩ লাখ ৮১ হাজার টাকা এবং জরিমানা আদায় করা হয়েছিল ১৩ লাখ ৮১ হাজার টাকা। পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব, পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ সভায় উপস্থিত ছিলেন।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 bnewsbd24.Com
Design & Developed BY Md Taher