বুধবার, ১৩ জানুয়ারী ২০২১, ১১:১৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম ::
টিমওয়ার্ক দুর্নীতি হয়, তবে ব্যক্তিগত দুর্নীতি বেশি: পরিকল্পনামন্ত্রী ভর্তি ও টিউশন ফি আদায়ে অনেক স্কুলই মাউশির নির্দেশনা মানছে না দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলতে উপজেলা পর্যায়ে তৈরি হচ্ছে প্রশিক্ষণ কেন্দ্র কলাপাড়া প্রেসক্লাব সভাপতির রোগ মুক্তি কামনায় দোয়া-মোনাজাত মোবাইল প্রেম অতপর: কুয়াকাটায় বেড়াতে এনে প্রেমিকাকে ধর্ষণ! করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ২২ মৃত্যু, শনাক্ত আরও ৮৪৯ জন বেসরকারি খাতে অনাদায়ী রয়েছে হাজার হাজার কোটি টাকা বকেয়া বিদ্যুৎ বিল দেশের মহাসড়ক এবং এক্সপ্রেসওয়েতে যানবাহন চলাচলে টোল দিতে হবে করোনায় আরও ২৫ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১০৭১ সহজে আর্থিক কার্যক্রম সম্পন্ন হওয়ায় দ্রুত জনপ্রিয় হচ্ছে ইন্টারনেট ব্যাংকিং
ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেক ঋণ এখনো বিতরণ হয়নি

ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেক ঋণ এখনো বিতরণ হয়নি

বি নিউজ : ক্ষুদ্র, অতিক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের মাঝে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সর্বশেষ সময়সীমা প্রায় শেষ হতে চলেছে। কিন্তু এখনো ওই খাতে লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেক ঋণও বিতরণ করা হয়নি। গত ১২ নভেম্বর পর্যন্ত ওই খাতে ঋণ বিতরণ হয়েছে ৮ হাজার ৭০০ কোটি টাকা। অর্থাৎ গত ১৩ এপ্রিল থেকে ১২ নভেম্বর পর্যন্ত ৭ মাসে ঋণ বিতরণ করা হয়েছে ২০ হাজার কোটি টাকা; যা লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেকেরও কম। ফলে বাসি সময়ের মধ্যে মাসের ব্যাংকগুলোর পক্ষে ওই ঋণ বিতরণ শেষ করা সম্ভব হবে না। তারপরও কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে ওই খাতে ঋণ বিতরণের নানা জটিলতা নিরসনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তারই অংশ হিসেবে গ্রাহক যাতে সহজেই ওই খাত থেকে ঋণ নিয়ে সুদের ভর্তুকি গ্রহণ করতে পারে সেজন্য সময়সীমা বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প খাতে উৎপাদন ব্যবস্থা স্বাভাবিক রাখতে সরকার অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও এসএমই উদ্যোক্তাদের সুদ হারের ওপর ভর্তুকি দিয়ে ২০ হাজার কোটি টাকার প্যাকেজ ঘোষণা করেছিল। সেজন্য ওই খাত থেকে গ্রাহকরা কিভাবে ঋণ গ্রহণ ও পরিশোধ করবে তার জন্য গত ১৩ এপ্রিল ব্যাংক ও গ্রাহকের জন্য একটি নীতিমালা জারি করা হয়। তাতে বলা হয়েছিল, এ খাত থেকে গ্রাহক ঋণ নিলে সুদ পরিশোধ করবে মাত্র ৪ শতাংশ। বাকি ৫ শতাংশ সরকার বাংলাদেশ ব্যাংকের মাধ্যমে ভর্তুকি দেবে। একজন গ্রাহক কোন খাতে কী পরিমাণ ঋণ নিতে পারবে তার জন্য নির্ধারিত সীমা বেঁধে দেয়া হয়েছিল। বলা হয়েছিল, এ নির্ধারিত সীমা ৩ মাস অন্তর সমন্বয় করতে হবে। অর্থাৎ একজন গ্রাহকের ঋণ নেয়ার নির্ধারিত সীমা হলো এক লাখ টাকা। ৩ মাস পরে ৪ শতাংশ সুদ যুক্ত হয়ে এক লাখ দুই হাজার টাকা হলো। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নীতিমালা অনুযায়ী তিনি পরে সুদের ওপর ভর্তুকি পেতে হলে গ্রাহককে ৫ কার্যদিবসের মধ্যে এক লাখ টাকার অতিরিক্ত দুই হাজার টাকা পরিশোধ করতে হবে। অন্যথায় ওই গ্রাহক সুদের ওপর ভর্তুকি পাবে না।
সূত্র জানায়, নানা কারণে গ্রাহক ৫ কার্যদিবসের মধ্যে নির্ধারিত সীমার অতিরিক্ত অর্থ পরিশোধ করতে পারছে না। কেউ ব্যাংক চেক দিচ্ছে কিন্তু তা নগদায়ন হতে অনেক সময় ৫ কার্যদিবস পার হয়ে যাচ্ছে। এভাবে নানা কারণে গ্রাহক সুদের ভর্তুকি থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ফলে অনেকেই ঋণ নিতে নিরুৎসাহিত হয়ে পড়ছে। গ্রাহকের অসুবিধা বিবেচনায় নিয়ে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নির্ধারিত সীমার অতিরিক্ত অর্থ ৩ মাসের পরবর্তী ৫ কার্যদিবসের পরিবর্তে ১০ কার্যদিবসে পরিশোধের সুযোগ দেয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, এখন থেকে গ্রাহক ৫ কার্যদিবসের পরিবর্তে ১০ কার্যদিবসের মধ্যে নির্ধারিত সীমার অতিরিক্ত অর্থ পরিশোধ করতে পারবে। পাশাপাশি ভর্তুকির অর্থ ব্যাংক থেকে পাওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকের আবেদনের সময়সীমাও বাড়িয়ে ১০ কার্যদিবসের পরিবর্তে ১২ কার্যদিবস করা হয়েছে।
সূত্র আরো জানায়, কুটির ও মাঝারি শিল্প খাতে ঋণ বিতরণ বাড়াতে
নানাভাবে চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু ব্যাংকগুলো অনেকটা ঢিমেতালে ঋণ বিতরণ করছে। যদিও কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে গত ১৩ এপ্রিল যখন এ নীতিমালা দেয়া হয় তখন ব্যাংকের শীর্ষ নির্বাহীদের সাথে পর্যালোচনা করে সময়সীমা দেয়া হয়েছিল। ইতোমধ্যে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের জন্য কয়েক দফা সময়ও বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে। সর্বশেষ সময়সীমা দেয়া হয়েছিল আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে থাকা হালনাগাদ তথ্য মতে, গত ১১ নভেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকগুলো ওই খাতে ঋণ বিতরণ করেছে মাত্র ৮ হাজার ৭০০ কোটি টাকা, যা লক্ষ্যমাত্রার অর্ধেকেরও কম। চলতি মাস শেষ হতে আর মাত্র কয়েক দিন বাকি আছে। তার মধ্যে ব্যাংকগুলো পক্ষে লক্ষ্যমাত্রার বাকি অংশ বিতরণ করা সম্ভব হবে না। এ কারণে ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য সর্বশেষ আরো এক মাস সময় বাড়িয়ে দেয়া হতে পারে। অর্থাৎ আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দেয়া হবে। এ সময়ের মধ্যেও ঋণ বিতরণ করতে না পারলে ব্যাংকগুলোর সাথে জরুরি বৈঠকে বসবে বাংলাদেশ ব্যাংক। ওই বৈঠকেই এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018-20
Design & Developed BY Md Taher