সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:১৭ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
ত্রাণ তহবিলের জন্য ১৬৫ কোটি টাকা অনুদান গ্রহণ করলেন প্রধানমন্ত্রী বিএনপির আন্দোলনের গর্জনই শুধু শোনা যায়, বর্ষণ দেখা যায় না : ওবায়দুল কাদের দেশে করোনায় আরো ২৬ জনের মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ১৫৪৪ ওয়াসার এমডিকে পুনরায় নিয়োগ না দেয়ার আহ্বান ক্যাবের শীতে করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে পারে, প্রস্তুতি নিন: প্রধানমন্ত্রী মসজিদে বিস্ফোরণ : বিদ্যুৎ মিস্ত্রিকে গ্রেফতার করেছে সিআইডি টানা লোকসান এড়াতে বন্ধ করে দেয়া হতে পারে দেশের চিনিকলগুলো নানা অনিয়মের কারণে টিসিবির বিপুলসংখ্যক ডিলারশিপ বাতিল আবারো পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করলো ভারত আহমদ শফীর জানাজায় লাখো মানুষের ঢল, দাফন সম্পন্ন
লেনদেনের সময় সীমিত হওয়ায় ব্যাংকের এটিএম সেবা বিঘ্নিত

লেনদেনের সময় সীমিত হওয়ায় ব্যাংকের এটিএম সেবা বিঘ্নিত

বি নিউজ : ২৪ ঘণ্টা লেনদেন করা ব্যাংকগুলো তাদের এটিএম সেবা সীমিত করেছে। কয়েকটি ব্যাংক নিজস্ব কার্ডের বাইরে লেনদেন স্থগিত করেছে। এ ছাড়া বেশ কয়েকটি ব্যাংক সাইবার হামলার আশঙ্কায় মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত এটিএম সেবা বন্ধ রাখছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে একটি সতর্ক বার্তা পাওয়ার পর এমন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর ফলে ব্যাংক খাতের গ্রাহকরা কাক্সিক্ষত সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে ডাচ-বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মো. শিরিন বলেন, সাইবার হামলার আশঙ্কায় তার ব্যাংক সর্বোচ্চ সতর্কতা অবম্বন করেছে। বিশেষ করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে চিঠি পাওয়ার পর তারা আরও সতর্ক হয়েছেন। তিনি বলেন, দিনের বেলায় তদারকি বাড়ানো হয়েছে। আর রাতের একটি অংশ এটিএম সেবা বন্ধ রাখা হচ্ছে। প্রসঙ্গত, যে ধরনের সাইবার হামলা করে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি হয়েছিল, সেই ধরনের সাইবার হামলার আশঙ্কায় গত মাসের শেষের দিকে বিশেষ সর্তকতা জারি করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা থেকে উত্তর কোরিয়ার একটি হ্যাকার গ্রুপ ব্যাংকগুলোতে আক্রমণের চেষ্টা করছে বলে সরকারের কম্পিউটার ইনসিডেন্ড রেসপন্স টিম (সার্ট) ও পুলিশের সাইবার অপরাধ তদন্ত বিভাগের কাছে তথ্য আসে। এর পরপরই বাংলাদেশ ব্যাংকসহ সব ব্যাংককে সাইবার নিরাপত্তা জোরদার করতে বলা হয়। এরপর গত ২৭ আগস্ট সব ব্যাংকে চিঠি দিয়ে সাইবার হামলার বিষয়ে সতর্ক করে বাংলাদেশ ব্যাংক। উত্তর কোরিয়ার হ্যাকার গ্রুপ ‘বিগল বয়েজ’ এ হামলা চালাতে পারে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। চিঠি পাওয়ার পরই সব ব্যাংক বাড়তি সতর্কতা জারি করেছে। ব্যাংকগুলো রাতের একটি নির্দিষ্ট সময়ে এটিএম সেবা বন্ধ রাখার পাশাপাশি কর্মকর্তাদের সার্বক্ষণিক সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছে। ব্যাংক কর্মকর্তারা বলছেন, শুধু এটিএম সেবাই নয়, অনলাইন, সুইফট, ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ, আন্তর্জাতিক ব্যাংকিং লেনদেনে কড়াকড়ি আরোপ করেছে বেশ কয়েকটি ব্যাংক। এই ব্যাংকগুলো সতর্কতার অংশ হিসেবে দিনের কিছু নির্দিষ্ট সময়ে এটিএম বুথে লেনদেন ও অনলাইন ব্যাংকিং বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রাত ১১টার পর থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত এটিএম বুথে লেনদেন বন্ধ রাখা, রাত ৮টার পর সুইফট ও বিইএফটিএনের লেনদেন বন্ধ রাখা, এটিএম থেকে ইএমভি লেনদেন বন্ধ রাখা, এনপিএসবি চ্যানেল বন্ধ রাখা। আগে সব ব্যাংকের আন্তর্জাতিক ক্রেডিট কার্ড দিয়ে সব ব্যাংকের এটিএম বুথে লেনদেন করা যেতো। এখন এ ধরনের লেনদেনও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গ সিটি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসরুর আরেফিন বলেন, গ্রাহকের অর্থের নিরাপত্তা দিতে আমরা সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিচ্ছি। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা অনুযায়ী বিভিন্ন ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তিনি জানান, কার্ডের লেনদেন নিরাপদ করতে আমাদের এটিএমে অন্য ব্যাংকের কার্ড গ্রহণ করা হচ্ছে না। এদিকে ডাচ-বাংলা রাত ১১টা থেকে সকাল ৭টা পর্যন্ত এটিএম বুথ বন্ধ রাখছে। ব্র্যাক ব্যাংক তাদের এটিএম সেবা বন্ধ রাখছে রাত ১২টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত। এর বাইরে অনেক ব্যাংক মধ্যরাত থেকে ভোর পর্যন্ত এটিএম সেবা বন্ধ রাখছে। ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক তাদের গ্রাহকদের মোবাইলে এসএমএস দিয়ে জানিয়েছে যেÑ তাদের সব এটিএম সেবা রাত ১২টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। একইসঙ্গে তাদের এটিএম সেবায় ব্যাংকের নিজস্ব কার্ড ছাড়া অন্য কোনও ব্যাংকের কার্ডে লেনদেন করা যাবে না। অন্য ব্যাংকগুলোও এসব ব্যবস্থা নিয়েছে। প্রায় সব ব্যাংকই রাত ৮টার পর সুইফট ও ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচ সিস্টেমস বন্ধ রাখছে। ফলে অনলাইন লেনদেনও সীমিত হয়ে আসছে। আগে সুইফটে সব সময় লেনদেন করা যেতো। এজন্য ব্যাংকগুলোর আন্তর্জাতিক বিভাগ বা ডিলিং রুম (যে রুমে বৈদেশিক মুদ্রা লেনদেনে যন্ত্রপাতি রয়েছে) সার্বক্ষণিকভাবে খোলা থাকতো। ন্যাশনাল পেমেন্ট সুইচেও সব সময় লেনদেন করা যেতো। ইলেক্ট্রনিক ফান্ড ট্রান্সফার পদ্ধতিও সীমিত করে আনা হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, দেশে ৫২টি ব্যাংকের এটিএম সেবা রয়েছে। আর এটিএম বুথ রয়েছে ১০ হাজার ৯৬১টি। এ ছাড়া ৫১টি ব্যাংকের পয়েন্ট অব সেলস বা পস রয়েছে ৬০ হাজার ৪৭৪টি। গত জুন পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর ইস্যুকৃত মোট কার্ড রয়েছে ২ কোটি ১৯ লাখ। এর মধ্যে ডেবিট কার্ডের সংখ্যা এক কোটি ৯৭ লাখ। ক্রেডিট কার্ড প্রায় ১৬ লাখের মতো। আরও ৬ লাখ রয়েছে প্রিপেইড কার্ড। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, নতুন পাওয়া ম্যালওয়্যারটি বড় ধরনের বিপদ ঘটাতে পারতো। কিন্তু তার আগেই এটিকে শনাক্ত করা সম্ভব হয়েছে। এখন সবাই সতর্ক। তারা আরও বলছেন, যে তিনটি ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার (আইএসপি) কোম্পানির সার্ভারে ম্যালওয়্যার ভাইরাসটি সাইবার হামলা করেছে সেটি মেরামতের কাজ চলছে। সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের (বিসিসি) সাইবার ইনসিডেন্ট রেসপন্স টিম (সার্ট) কাজ করছে। বিশ্বব্যাপী আর্থিক খাতে সাইবার হামলা হতে পারে মার্কিন বৈদেশিক গোয়েন্দা সংস্থা ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (এফবিআই) সাইবার ইউনিটের এমন সতর্কতা জারির পর বিশ্বব্যাপীও আর্থিক খাতগুলো সতর্ক অবস্থান নিয়েছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018-20
Design & Developed BY Md Taher