শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:২৪ অপরাহ্ন

শিরোনাম ::
করোনায় যেন দুর্ভিক্ষের প্রভাব না পড়ে সে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন উপলক্ষে আ. লীগের কর্মসূচি ঘোষণা ৪ নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত চট্টগ্রামের সীতাকুন্ডে অবৈধপথে ক্ষমতা দখলে ষড়যন্ত্রের গলি খুঁজছে বিএনপি -ওবায়দুল কাদের এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত ২ হাজার ৭৮৫ চিকিৎসক করোনায় আরও ২১ জনের মৃত্যু, নতুন আক্রান্ত ১৩৮৩ বিদেশফেরত কর্মীরা নানা শর্তের কারণে পুনর্বাসন ঋণ পাচ্ছে না শিল্পপ্রতিষ্ঠান লাভে পরিচালিত হলেও শ্রমিক কল্যাণ তহবিলে অর্থ জমা দিচ্ছে না মালিকরা বসুন্ধরা কোভিড হাসপাতালে চিকিৎসা কার্যক্রম বন্ধের নির্দেশ
মসজিদে বিস্ফোরণ: আরও একজনের মৃত্যু, মোট ২৯

মসজিদে বিস্ফোরণ: আরও একজনের মৃত্যু, মোট ২৯

বি নিউজ : নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকায় বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় আবদুস ছাত্তার (৪০) নামের আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট ২৯ জনের মৃত্যু হলো। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯টায় মারা যান তিনি। ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন পার্থ সংকর পাল বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। গত শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা এলাকার বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণ ঘটে। মুহূর্তের মধ্যে মসজিদের ভেতরে থাকা প্রায় ৫০ জনের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। হুড়াহুড়ি করে বের হওয়ার চেষ্টা করেন তারা। তাদের মধ্যে দগ্ধ অবস্থায় ৩৭ জনকে উদ্ধার করে শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর ডা. সামন্ত লাল সেন জানিয়েছিলেন, এ পর্যন্ত ৩৭ মুসল্লিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের সবারই ডিপবার্ন রয়েছে। শতাংশের হিসেবে কোন রোগীর কতটুকু বার্ন হয়েছে তা তাৎক্ষণিক বলা যাচ্ছে না। কেউ শঙ্কামুক্ত নন। এ ঘটনায় তিনটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এর মধ্যে ফায়ার সার্ভিস একটি, তিতাস গ্যাস কর্তৃপক্ষ একটি ও জেলা প্রশাসন একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। মসজিদে বিস্ফোরণে হতাহতের ঘটনায় সোমবার তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের ফতুল্লা অফিসের আট কর্মকর্তা-কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তারা হচ্ছেন-তিতাসের ফতুল্লা অফিসের ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, উপ-ব্যবস্থাপক মাহমুদুর রহমান রাব্বী, সহকারী প্রকৌশলী এস এম হাসান শাহরিয়ার, সহকারী প্রকৌশলী মানিক মিয়া, সিনিয়র সুপারভাইজার মো. মনিবুর রহমান চৌধুরী, সিনিয়র উন্নয়নকারী মো. আইউব আলী, সাহায্যকারী মো. হানিফ মিয়া এবং প্রো-কর্মী মো. ইসমাইল প্রধান।
আরও ৭ দিন সময় চেয়েছে জেলা প্রশাসনের তদন্ত কমিটি: এদিকে বিস্ফোরণের ঘটনায় নির্ধারিত সময়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিতে পারেনি জেলা প্রশাসন গঠিত তদন্ত কমিটি। আজ বৃহস্পতিবার প্রতিবেদন দেয়ার দিন ধার্য করা হলেও প্রতিবেদন দাখিল না করে আরও সাতদিনের সময় চেয়েছে তদন্ত কমিটি। নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জসিম উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এর আগে গত ৬ সেপ্টেম্বর রাতে জেলা প্রশাসন থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ৪ সেপ্টেম্বর নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার তল্লা বাইতুস সালাত জামে মসজিদে বিস্ফোরণে অনেকেই মৃত্যুবরণ করেছেন। এ প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহেরী ববিকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটিকে আগামী ৫ কার্য দিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
দগ্ধদের দেখতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক চিকিৎসক: আজ বৃহস্পতিবার শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট পরিদর্শন করেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক চিকিৎসক জুলফিকার লেলিন। পরে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মসজিদে বিস্ফোরণে দগ্ধদের চিকিৎসায় কোনো ঘাটতি নেই। প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে সার্বিক খোঁজখবর রাখছেন। তিনি বলেন, নারায়ণগঞ্জের মসজিদে যে মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে এতে দগ্ধদের অধিকাংশেরই ৯০ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাদের চিকিৎসার জন্য যা যা প্রয়োজন সব সাপোর্টই এই হাসপাতালের রয়েছে। প্রথম থেকেই প্রধানমন্ত্রী তাদের চিকিৎসার বিষয়ে খোঁজখবর রাখছেন। তিনি আরও বলেন, ওষুধ থেকে শুরু করে সব কিছুই সরকারিভাবে ব্যবস্থা করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। চিকিৎসা কিংবা স্বাস্থ্যকর্মীর কোনো ঘাটতি রয়েছে কিনা এটি দেখার জন্যই আজ বৃহস্পতিবার এসেছি। তবে এ রকম কোনো ঘাটতি দেখতে পাইনি। জুলফিকার লেলিন বলেন, হাসপাতালের কর্তৃপক্ষ, চিকিৎসকরা সব কিছুরই ব্যবস্থা করে দিচ্ছেন। রোগীর স্বজনদের আবেগের জায়গায় হয়তো কিছুটা সমস্যা রয়েছে। স্বজনরা তাদের রোগীকে দেখতে পাচ্ছে না, আইসিইউতে ঢুকতে পারছেন না। উপজেলা ও জেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী সব তথ্য নিচ্ছেন। আরও যা যা প্রয়োজন সে বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার প্রক্রিয়া চলছে।

শেয়ার করুন

© All rights reserved © 2018-20
Design & Developed BY Md Taher