বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন

অপরিকল্পিত উন্নয়নের কারণে অস্তিত্ব হারাতে বসেছে খাল’ চাষাবাদে হুমকি ছরাচ্ছে রোগবালাই!

অপরিকল্পিত উন্নয়নের কারণে অস্তিত্ব হারাতে বসেছে খাল’ চাষাবাদে হুমকি ছরাচ্ছে রোগবালাই!

মু. জিল্লুর রহমান জুয়েল, পটুয়াখালী। পটুয়াখালী সদর উপজেলার বদরপুর ইউনিয়নের অর্ন্তগত তেলিখালী খালে একসময় নৌযান চলাচল করতো। এছারাও অতিতে খালের অভ্যন্তরের পানি নিয়ে কৃষক বিনা খরচে সেচে দিয়ে কৃষি চাষবাদ করে কৃষকের ঘড়ে সোনালী ফসল ঘরে তুলে নিশ্চিন্তে দিন কাটাতো। কিন্তু কালের বিবর্তনে আর জলবায়ু পরিবর্তন, দখল ও অপরিকল্পিত উন্নয়নের কারণে নিজের অস্তিত্ব হারাতে বসেছে ঐতিহ্যের এই খালটি।

দীর্ঘ অনুসন্ধানে জানা যায়,বিভিন্ন গ্রামের মানুষ ছোট ছোট নৌকা দিয়ে কৃষি পণ্য পরিবহন ও নদী হয়ে তেলিখালী খালের সংযোগ দিয়ে ট্রলার, মালবাহী বড় বড় নৌকা চলাচল করতো। কচুরিপানায় খাল গ্রাস করায় ছোট ছোট নৌকাও চলাচল করতে পারছে না। পলি মাটি জমে শাখা খাল ভরাট হয়ে যাওয়ায় চাষাবাদের জমিতে পানি প্রবেশ করতে পারছে না। এর আগে যাও একটু জোয়ার ভাটার পানি প্রবাহ হতো তা এখন প্রায় বন্ধ রয়েছে। এতে ভোগান্তি আরও বেড়েছে প্রায় ১০ হাজার গ্রামের জনসাধন। আরো জানা যায়, কচুরিপানায় ভরপুর থাকায় পানি ব্যবহার করতে পারছেনা। প্রতিনিয়োত পানি দূষিত হয়ে ছড়াচ্ছে পানিবাহিত রোগ।

সরজমিনে খালপাড়ে গেলেই যে কারও নজরে পড়বে বিভিন্ন পোকা-মাকড়সহ বিষাক্ত সাপ সহ খালে কচুরিপানা জমে বর্জ্য বিভিন্ন জায়গায় জল বদ্ধোতায় রাখায় দুর্গন্ধ ও মশা-মাছিসহ বিভিন্ন রোগজীবাণুর প্রজননের এবং বিষধর প্রাণীর অভয় আশ্রায় স্থল হিসেবে প্রতিদিন বারছে নানান রোগবালাই।

এছারা আসছে বোরো মৌসুমে বরোচাষ নিয়েও কৃষক সহ উদবীগ্ন কয়এক হাজার এলাকাবাসী । অবিলম্বে কচুরিপানা অপসারণ করে খালে পানির গতিপ্রবাহ স্বাভাবিক করতে সংশ্লিষ্টদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

তবে এ বিষয়ে পটুয়াখালী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. হাসানুজ্জামান জানান, সরকারের ডেল্টা প্ল্যানের আওতায় জেলার সব নদী ও খাল আগের মতো পানি প্রবাহ সচল করতে কাজ করা হচ্ছে এবং পর্যায়ক্রমে কাজ করা হবে বলে জানান।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 bnewsbd24.Com
Design & Developed BY Md Taher