সোমবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:২১ অপরাহ্ন

ইতিহাসে প্রতিদিন আজ (শুক্রবার), ০১লা জুন’২০১৮, (মানিক মিয়ার মৃত্যু)

ইতিহাসে প্রতিদিন আজ (শুক্রবার), ০১লা জুন’২০১৮, (মানিক মিয়ার মৃত্যু)

১ জুন এদেশের প্রথিতযশা সাংবাদিক বহুল প্রচারিত দৈনিক ইত্তেফাকের প্রতিষ্ঠা সম্পাদক তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়ার মৃত্যুবার্ষিকী। বিশাল হৃদয়ের অধিকারী এক বিস্ময়কর প্রতিভা ছিলেন তিনি। মাত্র ৫৮ বছর বয়সে ১৯৬৯ সালের এ দিনেমানিক মিয়া ইহলোক ত্যাগ করেন। সাংবাদিকতাকে একটি মিশন ও ভিশন নিয়ে আমরণ লড়াই করে গেছেন তিনি। স্বীয় কর্মের মাধ্যমে মানিক মিয়া একটি প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছিলেন। তার ছদ্মনামে লেখা মোসাফির কলাম পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠী র ভীত কাঁপিয়ে দিয়েছিল। প্রতিবছর বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে দিবসটি পালন করে থাকে।

১৯২৩ খ্রিষ্টাব্দের এ দিনে জাপানের রাজধানী টোকিওতে ভয়াবহ ভূমিকম্প হয়েছিলো। মূলত এটা একটি ভূমিকম্প ছিলো না বরং অল্প সময়ের ব্যবধানে পরপর দুটো ভূমিকম্প আঘাত হেনেছিলো। এর ফলে টোকিও মহানগরীর প্রায় অর্ধেক ধ্বংস্তুপে পরিণত হয়। এই প্রলয়ংকরী ভূমিকম্পে অন্তত দেড়লক্ষ লোক নিহত হয়েছিলো।

১৯৪১ খ্রিষ্টাব্দের এ দিনে গ্রীসে জার্মানির মিত্রপক্ষের শেষ শক্তিশালী ঘাটি ক্রিট দ্বীপের পতন ঘটে। বিজয়ী এবং বিজিত উভয় পক্ষকে ক্রিট যুদ্ধের জন্য চড়া মূল্য দিতে হয়েছিলো। ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দের গোড়ার দিকে বৃটিশ বিমান বাহিনীর মদদপুষ্ট হয়ে গ্রীক সেনাবাহিনী ইতালীয়দের একটি আগ্রাসন প্রতিহত করে। কিন্তু এই বিজয়ের আনন্দ স্থায়ী হতে পারেনি ১৯৪১ খ্রিষ্টাব্দের ১লা এপ্রিল এডলফ হিটলার তার অপরাজেয় সৈন্যবাহিনী নিয়ে গ্রীসের উপর ঝাপিয়ে পড়ে। জার্মান বাহিনী এত দ্রুত এগিয়ে আসতে থাকে যে বৃটিশ সরকার শেষ পর্যন্ত গ্রীসে সাহায্য প্রেরণের কথা বাতিল করে দিতে বাধ্য হয়। একই মাসের ২৩ তারিখের মধ্যে গ্রীসের রাজা এবং তার সরকারকে ক্রিট দ্বীপে সরিয়ে নেয়া হয়। এই স্থানান্তরের সময় জার্মান বিমান বাহিনীর হামলায় মিত্র পক্ষের অন্তত এক হাজার নাবিক নিহত হয়েছিলো। মে মাসের শেষের দিক থেকে জার্মান বাহিনী ক্রিট দ্বীপের উপর হামলা শুরু করে। কয়েকদিনের মধ্যে জার্মানি প্রায় ২০ হাজার ছত্রীসেনাকে এই দ্বীপে অবতরণ করায়। এক পর্যায়ে জার্মান বাহিনী দ্বীপের বিমান বন্দর দখল করে নেয় এবং ক্রিট পতন অনিবার্য হয়ে পড়ে। শেষ পর্যন্ত ১লা জুন জার্মান বাহিনীর হাতে ক্রিটের পতন ঘটে।

১৯৬৮ খ্রিষ্টাব্দের এই দিনে অন্ধ ও বধির এবং বিশ্বখ্যাত লেখিকা হেলেন কিলার ৮৭ বছর বয়সে পরলোকগমন করেন। ১৮৮০ খ্রিষ্টাব্দের ২৭ জুনে হেলেন কেলার জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। আর দশটা স্বাভাবিক শিশুর মতই হেলেন কিলারের জন্ম হয়েছিলো কিন্তু ১৯ মাস বয়সে একটি জ¦রে আক্রান্ত হয়ে তিনি বধির ও দৃষ্টিহীন হয়ে যান। ছয় বছর বয়সে হেলেন কেলার টেলিফোন আবিষ্কারক আলেকজান্ডার গ্রাহামবেলের সহায়তায় বধিরদের জন্য বিশেষ একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তি হওয়ার সুযোগ পান। এখানেই শিক্ষক অ্যান সুলিভানের সহযোগিতায় তার পাঠ গ্রহণের কঠিন অধ্যবসায়ের সূচনা হয়। তিনি শেষ পর্যন্ত রেডক্লিফ থেকে কৃতিত্বের সাথে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। তবে ডিগ্রি অর্জনের আগেই নিজ আত্মজীবনী দ্যা স্টোরি অব মাই লাইফ প্রকাশিত হয়। দ্যা ওয়ার্ল্ড আই লিভ ইন, আউট অব ডার্ক, মাই রিলিজিয়ন তার বিখ্যাত বই গুলোর অন্যতম।

ফার্সি ১৩৭৯ সালের এ দিনে ইরানের বিশিষ্ঠ আলেম এবং সংগ্রামী ব্যক্তিত্ব হোজ্জাতুল ইসলাম সাইয়্যেদ আলি আকবর আবু তোরাবি এবং তার পিতা আয়াতুল্লাহ সাইয়্যেদ আব্বাস আবু তোরাবি এক সড়ক দুর্ঘটনায় ইন্তেকাল করেন। তিনি ফার্সি ১৩১৮ সালে ইরানের পবিত্র নগরী কোম শহরে জন্ম গ্রহণ করেছিলেন। তিনি ইমাম খোমেনির নেতৃত্বে ইসলামী বিপ্লবের জন্য সংগ্রামের সূচনা করেন। তিনি ১৩৪২ সালে ইরানের তৎকালীন শাসক শাহের অনুচরদের চক্রান্তে কারারুদ্ধ হন এবং কারাগারে দু:সহ নির্যাতনের মুখে পড়েন। ইরানে ইসলামী বিপ্লবের বিজয়ের পর এবং ইরাকের চাপিয়ে দেয়া যুদ্ধ শুরু হওয়ার পর তিনি প্রতিরোধ যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেন। এই যুদ্ধ শুরুর কয়েক মাস পরে অর্থাৎ ফার্সি ১৩৫৯ সালে তিনি বন্দি হন। এরপর ১০ বছর তাকে সাদ্দামের কারাগারে কাটাতে হয়েছে এবং ভয়াবহ নির্যাতনের মোকাবেলা করেছেন। ফার্সি ১৩৬৯ সালে তিনি অন্যান্য ইরানি যুদ্ধবন্দির সাথে মুক্তি লাভ করেন। সে সময় ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহিল উজমা খামেনেয়ী তাকে যুদ্ধ বন্দি ও তাদের মুক্ত করা সংক্রান্ত বিভাগের সর্বোচ্চ নেতার প্রতিনিধি হিসেবে তাকে নিয়োগ করেন। পরবর্তীকালে দুই বার তিনি ইরানের সংসদের নির্বাচন সংক্রান্ত কমিটির প্রতিনিধি ছিলেন। ইরানের এই সংগ্রামী আলেম নিজের জীবনে সাদা-সিদে জীবন যাপনের অনবদ্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

২০০১ খ্রিস্টাব্দের এই দিনে সার্কভুক্ত দেশ নেপালের ইতিহাসে এক প্রায় নজিরবিহীন এক দু:খজনক ইতিহাস রচিত হয়। এ দিনে রাজা বীরেন্দ্র নিজ পুত্র যুবরাজ দীপেন্দ্রের গুলিতে নিহত হন। রাজকীয় ভোজ সভায় এই গুলি বর্ষণের ঘটনায় রাণী ঐশ্বরিয়া সহ রাজ পরিবারের অধিকাংশ সদস্য নিহত হন। দীপেন্দ্র এই হত্যাকান্ডের পর আত্মহত্যার চেষ্টা করতে যেয়ে আহত হন এবং কয়েকদিন পর তিনি প্রাণত্যাগ করেন। এরপর রাজভ্রাতা জ্ঞানেন্দ্র নেপালের রাজসিংহাসনে আরোহন করেন। যুবরাজ দীপেন্দ্র কেনো এমন হত্যালীলায় মেতে উঠেছিলো সে প্রশ্নের কোনো সুরাহা হয়নি। তবে প্রণয় ঘটিত ব্যাপারে রাজ মাতার সাথে মত বিরোধের ফলেই এমন গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটেছিলো বলে বলা হয়ে থাকে। এ ছাড়া বেশির ভাগ নেপালি মনে করেন এই হত্যাকান্ডের সাথে জ্ঞানেন্দ্রর যোগসাজশ রয়েছে। ২০০৮ সালের ২৮শে মে শেষ পর্যন্ত নেপালের রাজতন্ত্র উচ্ছেদ করে দেশটিকে প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

হযরত নিজাম উদ্দিন আউলিয়া (র:)-এর ইন্তেকাল (৭২৫)
অবিভক্ত ভারতের প্রথম বীমা কোম্পানি ইউনিয়ন ইব্যুরেন্স চালু (১৭৮৫)
আলেকজান্ডার ডেভিনসন কর্তৃক মাদ্রাজে জেনারেল পোস্ট অফিস চালু (১৭৮৬)
দৈনিক ইস্ট ইন্ডিয়া পত্রিকা প্রকাশ (১৮৩১)
বঙ্গে ইংরেজি শিক্ষা প্রবর্তনের অন্যতম উদ্যোক্তা ডেভিট হেয়ারের মৃত্যু (১৮৪২)
ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি বিলুপ্ত ঘোষণা (১৮৭৪)
ভারতে অস্পৃশ্য নিরোধ আইন চালু (১৯৫৫)
জেনারেল শার্ল দ্যা গল ফ্রান্সের প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত (১৯৫৮)
বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) প্রতিষ্ঠা (১৯৬১)
প্রতিবন্ধী শিক্ষার উদ্যোক্তা, অন্ধ ও বধির লেখিকা হেলেন কেলারের মৃত্যু (১৯৬৮)
বাংলাদেশে প্রাথমিক শিক্ষকদের সরকারি কর্মচারীর মর্যাদা দান (১৯৯৩)

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 bnewsbd24.Com
Design & Developed BY Md Taher