শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১২:০৪ অপরাহ্ন

অবৈধ ও ভূঁইফোড় ডায়াগনস্টিক ও ক্লিনিক নিয়ন্ত্রণে অনলাইনে নিবন্ধনের উদ্যোগ

অবৈধ ও ভূঁইফোড় ডায়াগনস্টিক ও ক্লিনিক নিয়ন্ত্রণে অনলাইনে নিবন্ধনের উদ্যোগ

বি নিউজ : দেশজুড়েই নানা অলিগলিতে অসংখ্য ভুঁইফোড় বেসরকারি হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিক গজিয়ে উঠেছে। অধিকাংশেরই স্বাস্থ্য অধিদফতরের নিবন্ধন নেই। অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানেই সাধারণ মানুষ স্বাস্থ্যসেবার নামে প্রতিনিয়ত প্রতারণা ও বঞ্চনার শিকার হচ্ছে। স্বাস্থ্যসেবার নামে লাভজনক ব্যবসা ফেঁদে বসেছে ওসব প্রতিষ্ঠান। এমন পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য অধিদফতর ওসব অবৈধ ক্লিনিক-ডায়াগনস্টিক সেন্টারের দৌরাত্ম্য বন্ধে অনলাইন নিবন্ধনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বেসরকারি হাসপাতাল, ক্লিনিক, নার্সিং হোম, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ব্লাড ব্যাংকের অনুমোদন প্রক্রিয়া অটোমেশন করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ দেশের যে কোনো জায়গায় ওসব প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করতে স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওয়েবসাইটে অনলাইনে আবেদন করতে হবে। নিবন্ধনের আবেদনপত্রের সঙ্গে জমা দিতে হবে চাহিদামাফিক প্রয়োজনীয় কাগজপত্র। তারপর প্রতি জেলার সিভিল সার্জন ওই জেলা থেকে আবেদন করা প্রতিষ্ঠানগুলো পরিদর্শন করে স্বাস্থ্য অধিদফতরে মতামত পাঠিয়ে দেবেন। সে অনুযায়ী স্বাস্থ্য অধিদফতর প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন ও মেয়াদ প্রদান করবে। তারপর প্রতিটি জেলা অনুযায়ী সারা দেশের বেসরকারি ক্লিনিক, নার্সিং হোম, ডায়াগনস্টিক সেন্টার, ব্লাড ব্যাংকের তালিকা স্বাস্থ্য অধিদফতরের ওয়েবসাইটে দিয়ে দেয়া হবে। মে মাসের মাঝামাঝি জারি হওয়া প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী কাজ শুরু করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।
সূত্র জানায়, প্রতি বছর অ্যানালগ পদ্ধতিতে বেসরকারি ওসব স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হয়। এর ফলে যখন অবৈধ ক্লিনিক-হাসপাতালে অভিযান পরিচালনা করার প্রয়োজন পড়ে, তখন স্বাস্থ্য অধিদফতরের কাছে তালিকা চেয়ে পাঠাতে হয়। আর ওই তালিকা দিলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী অভিযান চালায়। সেক্ষেত্রে দেশের বিভিন্ন জেলার প্রতিষ্ঠানগুলোয় অভিযান চালাতে অনেক সময়ের অপচয় হয়। কিন্তু এখন আর সে উপায় থাকছে না। দেশের যে কোনো প্রান্তে যে কোনো মানুষ জানতে পারবে সে অনুমোদিত প্রতিষ্ঠানে চিকিৎসা নিচ্ছে কিনা। তাতে মানুষের আস্থা বাড়ার পাশাপাশি বাড়বে নিয়ন্ত্রণ ও কঠোর নজরদারির ব্যবস্থা।
এদিকে বেসরকারি স্বাস্থসেবা প্রতিষ্ঠানের অটোমেশনের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. শহীদুল্লাহ সিকদার জানান, এর মধ্য দিয়ে বেসরকারি সেবা খাতে শৃঙ্খলা আরো জোরদার হবে। অটোমেশনের আওতায় এলে প্রতিটি বেসরকারি ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে সরকার নির্ধারিত দামে চিকিৎসা ও প্যাথলজি ফি নিতে হবে।
অন্যদিকে এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) অধ্যাপক ডা. কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন জানান, অটোমেশন প্রক্রিয়া চালুর সিদ্ধান্ত হয়েছে। এক বছর ধরে ধাপে ধাপে সম্পন্ন করা হয়েছে এ প্রক্রিয়া। এ পদ্ধতি চালু করতে অ্যাপস তৈরি থেকে শুরু করে পুরো প্রক্রিয়া তদারকি করছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 bnewsbd24.Com
Design & Developed BY Md Taher