রবিবার, ১০ নভেম্বর ২০১৯, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন

আসন বন্টনের দাবি নিয়ে সংলাপে যাবেন এরশাদ

আসন বন্টনের দাবি নিয়ে সংলাপে যাবেন এরশাদ

বি নিউজ : একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর ডাকা সংলাপে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এইচ এম এরশাদ যাবেন নিজের দলের আসন বণ্টন নিয়ে দর কষাকষি করতে। তিনি আজ শনিবার জামালপুরে দলের জনসভায় বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের সংলাপে ডেকেছেন, আমরা সংলাপে যাব। আমাদের দাওয়াত দিয়েছেন, আমরা দাওয়াতে যাব। আমরা কোনো তালিকা নিয়ে সংলাপে যাব না। এ সংলাপে আমার দাবি হবে একটাই, কত আসন দেবেন? যদি পর্যাপ্ত আসন দেয়, তবে আমরা মানব। আমার মনে হয়, তারা আমাদের দাবি মানবে। একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে রাজনৈতিক মতবিরোধের মধ্যে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের আহ্বানে সাড়া দিয়ে তাদের সঙ্গে সংলাপে বসার পর অন্য রাজনৈতিক দলগুলোকেও আলোচনায় ডেকেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এরশাদের দল জাতীয় পার্টির সঙ্গে সংলাপ হবে সোমবার। বিএনপিবিহীন সংসদে বিরোধী দলের আসনে বসেও সরকারে অংশগ্রহণকারী জাতীয় পার্টি নেতা এরশাদ ইতোমধ্যে বলেছেন, বিএনপি আগামি নির্বাচনে এলে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জোট বেঁধেই ভোট করবেন তারা। সংলাপে সেই আসন ভাগাভাগির বিষয়টিই তার কাছে প্রধান আলোচ্য বলে জামালপুরের ইসলামপুরের গুঠাইল হাই স্কুল এ- কলেজ মাঠের জনসভায় বলেন তিনি। আওয়ামী লীগের কাছে কতটি আসন চাইবেন, তা স্পষ্ট করেননি প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত এরশাদ। তিনি বলেন, আমার মনে হয়, বেশি আসন দিলে আমাদের ক্ষমতায় যাওয়ার সুযোগ হবে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সংলাপ শেষে হতাশা প্রকাশ করায় তার পরিপ্রেক্ষিতে এরশাদ বলেন, তাদের সংলাপ ব্যর্থতায় পর্যবসিত’ হয়েছে। জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট যেসব দাবি তুলেছে, সংবিধান মোতাবেক একটি দাবিও মানা সম্ভব নয়। নিজের জেল জীবনের কথা তুলে ধরে এরশাদ বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উদ্দেশে বলেন, আমাকে বিনা কারণে, বিনা দোষে জেল খাটতে হয়েছে। এখন আপনি কোথায়? আপনি বিচারে দোষী সাব্যস্ত হয়ে এখন জেল খাটছেন। আপনি আর কোনোদিন বের হতে পারবেন না। আপনার ছেলে আর কোনো দিন দেশে আসতে পারবে না। সুতরাং জাতির সামনে এখন দুইটাই দল.. আওয়ামী লীগ আর জাতীয় পার্টি। আমাদের সামনে ক্ষমতার যাওয়ার সুযোগ তৈরি হয়েছে। আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে অনুষ্ঠিত হয় সেজন্য তৃণমূলের নেতাদের প্রতিটি কেন্দ্রে পাহারা দেওয়ার নির্দেশনা আসে এই সমাবেশ থেকে। এরশাদ বলেন, এই নির্বাচন যেন সিল মারার নির্বাচন না হয়, সেজন্য তোমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। প্রতিটি কেন্দ্রে গার্ড দিতে হবে। নির্বাচনে যেন কারচুপি করতে না পারে কেউ। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় গেলে গুম-খুনের রাজনীতি ‘পরিহারের’ পাশাপাশি প্রতিহিংসার রাজনীতিও বন্ধ করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দেন তিনি। আজকে কে কোথায় গুম হয়ে যায়, খুন হয়ে যায়….কেউ কোনো খবর রাখে না। আমরা কথা দিচ্ছি, আমরা খবর রাখব। আমরা করে দেখাব। কারও ছেলেকে আমরা গুম হতে দেব না। ইসলামপুর উপজেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক মোস্তফা আল মাহমুদের সভাপতিত্বে এই জনসভায় দলের মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, সভাপতিম-লীর সদস্য আজম খান, এম এ সাত্তারসহ জেলা ও উপজেলা জাতীয় পার্টির নেতারা বক্তব্য রাখেন। নব্বইয়ে এরশাদের পতনের পর জামালপুর-২ (ইসলামপুর) আসন থেকে একবারও জিততে পারেননি জাতীয় পার্টি। এবার আসনটিতে প্রার্থী হচ্ছেন বিদ্যুৎ খাতের ব্যবসায়ী মোস্তফা আল মাহমুদ। গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে ঢাকা-১৭ আসনে নির্বাচনী গণসংযোগ শুরু করার পর দেশের বিভিন্ন বিভাগীয়, জেলা, উপজেলা শহরে গণসংযোগ করছেন এরশাদ। ৩৭ বছরের রাজনৈতিক জীবনের ‘শেষ নির্বাচনে’র গণসংযোগে এরশাদ বলেছেন, জাতীয় পার্টিকে ক্ষমতাসীন দেখাই তার জীবনের ‘শেষ ইচ্ছা’।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2017 bnewsbd24.Com
Design & Developed BY Md Taher